ট্রাম্পের মুখে রাশিয়ার পতাকা নিক্ষেপ (ভিডিও)

কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটল হিলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মুখের ওপর রাশিয়ার পতাকা ছুঁড়ে মারলেন রুশ বিরোধী এক বিক্ষোভকারী।

মঙ্গলবার রিপাবলিকান সিনেটরদের সঙ্গে মধ্যাহ্নভোজে অংশ নিতে যাওয়ার সময় এ বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখে পড়েন ট্রাম্প।

গণমাধ্যমকর্মীদের মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকা এক ব্যক্তি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা মিচ ম্যাককনয়েলের দিকে ছোট আকৃতির কয়েকটি পতাকা নিক্ষেপ করেন। ট্রাম্পের রাশিয়াপ্রীতির প্রতিবাদ জানাতে লোকটি এ কাজ করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পুলিশ লোকটিকে গ্রেপ্তার করে এবং তার পরিচয় জানা যায়। তার নাম রায়ান ক্লেইটন। তিনি চিৎকার করে বলছিলেন, ‘ট্রাম্প একজন বিশ্বাসঘাতক।’ নিরাপত্তারক্ষীরা তাকে ধরে ফেলার পরও তিনি চেচিয়ে বলতে থাকেন, ‘রাশিয়া সরকারের চরদের সঙ্গে আঁতাত করেছেন প্রেসিডেন্ট। কর হ্রাসের ইস্যুর পরিবর্তে কংগ্রেসে বিশ্বাসঘাতকতার বিষয়টি উত্থাপন করা উচিত।’

এ ঘটনায় ট্রাম্পের কোনো বিপদ হয়নি। কিন্তু ক্যাপিটল হিলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। সাংবাদিকসহ সাধারণ মানুষ পরিদর্শন বা কারো সঙ্গে দেখা করার জন্য ক্যাপিটল হিলের ভেতরে ঢুকতে পারে। কিন্তু মেটাল ডিটেক্টরের মধ্যে দিয়ে আসতে হয় তাদের।

ক্যামেরার সামনে ক্লেইটন নিজেকে গোয়েন্দা বিভাগের এজেন্ট হিসেবে পরিচয় দেন। তিনি দাবি করেন, অনলাইনভিত্তিক ‘আমেরিকানস টেক অ্যাকশন’ গ্রুপের সদস্য তিনি। সবার জন্য অর্থনীতি, ইন্টারনেট সেবা উন্মুক্ত রাখাসহ মুক্ত আমেরিকার দাবিতে কাজ করে গ্রুপটি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি হোয়াইট হাউস। এদিকে, জুলাই মাসে এ ধরনের আরেকটি কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন ক্লেইটন। ট্রাম্পের জামাতা জ্যারেড কুশনারের হাতে রাশিয়ার পতাকা ধরিয়ে দিয়ে তাকে তাতে স্বাক্ষর দিতে বলেছিলেন তিনি।

ট্রাম্পের নিন্দা করে সরে দাঁড়ালেন দুই সিনেটর

এদিকে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কঠোর নিন্দা করে সরে দাঁড়িয়েছেন দুজন রিপাবলিকান সিনেটর।

সিনেটর জেফ ফ্লেক ও বব করকার সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, সিনেটর পদে আর পুনর্নির্বাচন করবেন না তারা। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ও গণতন্ত্র ধ্বংস করার অভিযোগ তুলেছেন তারা।

আরিজোনার সিনেটর জেফ ফ্লেক বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সর্বোচ্চ ব্যক্তির ‘বেপরোয়া, ভয়ানক ও অমর্যাদাপূর্ণ ব্যবহার’ গণতন্ত্রের জন্য বিপজ্জনক। তবে এর আগে ফ্লেককে ‘বিষাক্ত’ বলেছিলেন ট্রাম্প।

ফ্লেকের আগে টেনেসির সিনেটর বব করকারের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে পড়েন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। আগামী বছর অনুষ্ঠেয় সিনেটর পদের নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী হিসেবে তিনিও লড়বেন না বলে জানিয়েছেন দিয়েছেন। ২০০৭ সাল থেকে এই পদে আছেন করকার।

মঙ্গলবার সিনেটে নিজের সিদ্ধান্ত জানানোর আগে সংবাদপত্র ‘আরিজোনা রিপাবলিক’-কে তিনি বলেন, ‘বর্তমান রিপাবলিকান পরিবেশে অথবা রিপাবলিকান পার্টিতে আমার মতো রিপাবলিকানের স্থান নাও হতে পারে।’

সিনেটে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, ‘প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে সমালোচনা আমি উপভোগ করি না কিন্তু এটি দায়িত্ব ও বিবেকের বিষয়।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ও আদর্শের নিয়মিত ও যখন তখন অবমাননাকে আমরা কখনো সাধারণ ঘটনা বলতে পারি না।’

ডোনাল্ড ট্রাম্পের উদ্দেশে ফ্লেক বলেন, আমার সন্তান ও নাতি-নাতনি আছে, তাদের প্রশ্নের জবাব দিতে হবে আমাকে। প্রেসিডেন্ট, আমি এই অনৈতিকতার সঙ্গী হতে চাই না।’

তবে টুইটের মাধ্যমে ফ্লেকের নিন্দার জবাব দিয়েছেন ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, টেনেসির সিনেটর বেকুব। তিনি আর পুনর্নির্বাচিত হতে পারবেন না।

ভিডিও লিংক

সূত্র: আরটিএনএন

Comments

comments